কারিগরি ৫ লক্ষ শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিতে প্রকল্প সংশোধন

দেশের শিল্পে কাজে লাগাতে এবং বিদেশে দক্ষ জনশক্তি পাঠাতে সরকার প্রতিবছর ৫ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে। পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, টেক্সটাইল ও টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের এ বৃত্তি দিতে চলমান ‘স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং এনহেন্সমেন্ট প্রজেক্ট (এসটিইপি)’ শীর্ষক ৬৩৪ কোটি টাকার প্রকল্পটি আবার সংশোধন হয়েছে। প্রকল্প ব্যয় ১ হাজার ৭৮২ কোটি টাকায় উন্নীত করার প্রস্তাব মঙ্গলবার একনেক সভায় অনুমোদিত হয়েছে বলে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন।

বাংলাদেশের কারিগরি শিক্ষার গুণগত মান বাড়াতে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে সরকার। সংশোধিত প্রকল্পের কার্যপত্রে বলা হয়েছে, প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ব পরিস্থিতির আলোকে দেশে ও বিদেশে দক্ষ জনশক্তির চাহিদা দিন দিন বাড়লেও বাংলাদেশের বিদ্যমান কারিগরি প্রতিষ্ঠানগুলো তা পূরণ করতে পারছে না। এ দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতেই সরকার ২০১০ সাল থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ‘স্কিলস অ্যান্ড এসটিইপি প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছিল। ২০১০ সালে প্রকল্পটির মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ৬৩৪ কোটি ২৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে বিশ্ব ব্যাংক ও কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (সিডা) ৫৭৩ কোটি টাকার জোগান দেয়। ২০১৩ সালে ব্যয় ৮৫০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়। এবার ৯৩২ কোটি টাকা যোগ করা হয়েছে প্রকল্পটিতে। প্রকল্পের মেয়াদ বেড়েছে ২০১৯ সাল পর্যন্ত। এই অতিরিক্ত অর্থের মধ্যে বিশ্ব ব্যাংক প্রকল্প সহায়তা হিসেবে ১০ কোটি ডলার দিতে রাজি হয়েছে। প্রকল্প প্রস্তাবনা অনুযায়ী, অতিরিক্ত অর্থের ৫০ ভাগই শিক্ষার্থীদের বৃত্তি হিসেবে দেওয়া হবে।


এজন্য সরকারি-বেসরকারি ৫৭টি ভোকেশনাল, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনুদান দেওয়া হবে। এসব প্রতিষ্ঠানের ৫ লাখ ২৩ হাজার শিক্ষার্থী বৃত্তি পাবেন। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে প্রতিবছর ৫ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে বিশ্ব ব্যাংক । স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং এনহেন্সমেন্ট প্রজেক্ট (এসটিইপি) প্রকল্পের মাধ্যমে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, টেক্সটাইল ও টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের এ বৃত্তি পায়।

এডিটর

Facebook Comments